Download Screen Reader

শিক্ষার্থীদের চাহিদাকে প্রাধান্য দিয়ে তৈরি হচ্ছে ব্লেন্ডেড শিক্ষা মহাপরিকল্পনা

4 September, 2022

Reading Time: 1 Minute

 ২০৪১ সালের মধ্যে উদ্ভাবনী বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে চতুর্থ শিল্পবিপ্লব উপযোগী গুণগত শিক্ষা ও দক্ষতা উন্নয়নে তৈরি হচ্ছে ব্লেন্ডেড শিক্ষা মহাপরিকল্পনা, যা শিক্ষার্থীদের চাহিদা অনুযায়ী অনলাইন-অফলাইন উভয় পদ্ধতিতে শিক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ নিশ্চিত করবে। এলক্ষ্যে ব্লেন্ডেড শিক্ষা বিষয়ক জাতীয় টাস্কফোর্স কর্তৃক ব্লেন্ডেড শিক্ষা মহাপরিকল্পনার খসড়া প্রস্তুত করা হয়েছে।

 

শিক্ষা মন্ত্রণালয়, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়, ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়কে নিয়ে গঠিত ব্লেন্ডেড শিক্ষা বিষয়ক জাতীয় টাস্কফোর্স গত ০৯-১০ মার্চ সাভারে ০২ দিনব্যাপী ‘ব্লেন্ডেড শিক্ষা মহাপরিকল্পনা চূড়ান্তকরণ কর্মশালার’ মাধ্যমে এর খসড়া প্রস্তুত করা হয়েছে। খসড়া এই মহাপরিকল্পনায় শিক্ষা কার্যক্রমকে অফলাইন ও অনলাইন উভয় মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিতকরণ, পাঠ্যপুস্তকের পাশাপাশি ডিজিটাল কনটেন্ট নির্মাণ, ধারাবাহিক মূল্যায়ন পদ্ধতি চালুকরণ, শিক্ষকদের এই সংশ্লিষ্ট দক্ষতা উন্নয়নের জন্য ব্লেন্ডেড প্রশিক্ষণ ইত্যাদি কার্যক্রম গ্রহণ করার সুপারিশ করা হয়।

 

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী এবং ব্লেন্ডেড শিক্ষা বিষয়ক জাতীয় টাস্কফোর্সের সভাপতি ডা. দীপু মনি এমপি বলেন, ২০৪১ সালের মধ্যে উদ্ভাবনী বাংলাদেশ গড়ে তুলতে ব্লেন্ডেড শিক্ষা মহাপরিকল্পনা অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে। ভবিষ্যতের বাংলাদেশের জন্য আমাদের শিক্ষার্থীদের উদ্ভাবনী দক্ষতা বৃদ্ধি করা এবং তাদের প্রত্যেককে সমস্যা সমাধানে দক্ষ করে গড়ে তোলা প্রয়োজন। তিনি আরো বলেন, “আমরা সবসময় সমস্যা নিয়েই কথা বলি, কিন্তু সমাধানের কথা কম বলি। এজন্যই শিক্ষাব্যবস্থাকে এমনভাবে ঢেলে সাজাতে হবে যেন শিক্ষার্থীদের সবধরনের সমস্যা সমাধানের দক্ষতা বৃদ্ধি পায়। শিক্ষার্থীদের জ্ঞান, দক্ষতা ও দৃষ্টিভঙ্গি উন্নয়নের পাশাপাশি সমস্যা সমাধানে দক্ষ হয়ে ‘আই-এম-দি-সলিউশন’ হিসেবে নিজেদের গড়ে তুলতে হবে।” মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী বলেন, “আমরা সকল ক্ষেত্রেই এখন স্বয়ংসম্পূর্ণ, শুধুমাত্র আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করা প্রয়োজন। ব্লেন্ডেড শিক্ষা মহাপরিকল্পনা শুধু শিক্ষাব্যবস্থাকেই পরিবর্তন করবে না, পরিবর্তন করবে বাংলাদেশকে।” মহাপরিকল্পনা চূড়ান্তকরণের এই প্রক্রিয়ায় যুক্ত হওয়া সকল মন্ত্রণালয়ের অংশীদারিত্বের জন্য সংশ্লিষ্ট সকল মন্ত্রী এবং সচিবসহ সকল কর্মকর্তাদের কৃতজ্ঞতা জানান মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী।

 

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী জনাব মোস্তাফা জব্বার বলেন, ব্লেন্ডেড শিক্ষা বাস্তবায়নে কানেক্টিভিটির কোন বিকল্প নেই। এক্ষেত্রে শিক্ষা অবকাঠামোতে বিনিয়োগ জোরদার প্রয়োজন। প্রত্যেকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে উচ্চগতির ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের আওতায় নিয়ে আসা পাশাপাশি প্রতিটি শ্রেণীকক্ষে পর্যাপ্ত ডিভাইসের ব্যবস্থা করার ক্ষেত্রে ডাক ও টেলিযোগযোগ বিভাগ এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পাশে থাকবে। মন্ত্রী আরো বলেন, মাতৃভাষায় মানসম্মত ডিজিটাল কনটেন্ট প্রস্তুত করার উদ্যোগ গ্রহণের ক্ষেত্রে সরকারি-বেসরকারি অংশিদারিত্ব নিশ্চিত করা প্রয়োজন।

 

উল্লেখ্য, ব্লেন্ডেড শিক্ষা মহাপরিকল্পনা প্রণয়নের উদ্দেশ্যে ২০২১ সালের ৩০ জুন ব্লেন্ডেড শিক্ষা বিষয়ক জাতীয় টাস্কফোর্স গঠন করা হয়। জাতীয় টাস্কফোর্সের অধীন ৭টি উপকমিটি (প্রাক-প্রাথমিক, প্রাথমিক ও উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা, কারিগরি শিক্ষা, মাদ্রাসা শিক্ষা, উচ্চশিক্ষা, স্বাস্থ্য শিক্ষা, গবেষণা ও উন্নয়ন) কর্তৃক মহাপরিকল্পনার খসড়া তৈরি করা হয়। এক্ষেত্রে ব্লেন্ডেড শিক্ষা বাস্তবায়নের জন্য ৫টি বিষয়ের (শিখন-শেখানো কার্যক্রম, শিখন সামগ্রী, ধারাবাহিক ও সামষ্টিক মূল্যায়ন, শিক্ষকদের সক্ষমতা উন্নয়ন, অর্ন্তভুক্তিমূলক অবকাঠামো) উপর কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। 

 

জাতীয় টাস্কফোর্সের ৭টি উপকমিটি কর্তৃক প্রণীত খসড়া পরিকল্পনাসমূহ একীভূত করে মহাপরিকল্পনার পূর্ণাঙ্গ খসড়া শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী এবং ব্লেন্ডেড শিক্ষা বিষয়ক জাতীয় টাস্কফোর্সের সভাপতি ডা. দীপু মনি’র কাছে উপস্থাপন করা হয়। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর-এর পরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) প্রফেসর ড. একিউএম শফিউল আজম এবং এটুআই-এর পলিসি অ্যাডভাইজর জনাব আনীর চৌধুরী মহাপরিকল্পনার খসড়া উপস্থাপন করেন। এছাড়া বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রন কমিশন (বিটিআরসি)-এর মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ নাসিম পারভেজ, এনডিসি, এএফডব্লিউসি, পিএসসি বাংলাদেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ডিজিটাল কানেক্টিভিটি স্থাপন পরিকল্পনা উপস্থাপন করেন।

 

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব এবং ব্লেন্ডেড শিক্ষা বিষয়ক জাতীয় টাস্কফোর্সের সদস্য সচিব জনাব মো: আবু বকর ছিদ্দীক-এর সভাপতিত্বে ব্লেন্ডেড পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় যুক্ত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ-এর সিনিয়র সচিব জনাব এন এম জিয়াউল আলম পিএএ, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়-এর সচিব জনাব মোঃ আমিনুল ইসলাম খান, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ-এর সচিব জনাব মোঃ কামাল হোসেন, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ-এর সচিব জনাব মোঃ খলিলুর রহমান, বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সদস্য প্রফেসর ড. মোঃ সাজ্জাদ হোসেন, বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সদস্য প্রফেসর ড. বিশ্বজিৎ চন্দ, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোঃ মশিউর রহমান, বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স রেগুলেটরি কমিশনের (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান জনাব শ্যাম সুন্দর সিকদার, বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ, আন্তর্জাতিক ই-লার্নিং বিশেষজ্ঞ জনাব বদরুল হুদা খান’সহ ব্লেন্ডেড শিক্ষা বিষয়ক জাতীয় টাস্কফোর্স-এর অন্যান্য সদস্যবৃন্দ এবং শিক্ষা সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরসমূহের মহাপরিচালকবৃন্দ ও এটুআই কর্মকর্তাগণ।


RELATED POSTS